ঢাকা - নভেম্বর ২৫, ২০২০ : ১০ অগ্রহায়ণ, ১৪২৭

২৬ নভেম্বর থেকে কর্মবিরতিতে যাচ্ছেন স্বাস্থ্য সহকারীরা

নিউজ ডেস্ক
নভেম্বর ২১, ২০২০ ১৩:৪০
৫৫ বার পঠিত

আগামী ২৬ নভেম্বর থেকে কর্মবিরতিতে যাওয়ার ঘোষণা দিয়েছেন সারা দেশের স্বাস্থ্য পরিদর্শক, সহকারী স্বাস্থ্য পরিদর্শক ও স্বাস্থ্য সহকারীরা। নিয়োগবিধি সংশোধন করে বেতন বৈষম্য নিরসনের দাবিতে এ কর্মসুচি। এ দাবি পূরণে প্রজ্ঞাপন না হওয়া পর্যন্ত অব্যাহত থাকবে কর্মবিরতি। শুক্রবার (২০ নভেম্বর) জাতীয় প্রেস ক্লাবে সংবাদ সম্মেলনে এ ঘোষণা দেয় বাংলাদেশ হেলথ্ অ্যাসিসট্যান্ট অ্যাসোসিয়েশন।

সংবাদ সম্মেলনে লিখিত বক্তব্যে সংগঠনের আহবায়ক শেখ রবিউল আলম খোকন বলেন, স্বাস্থ্য সহকারীদের ঐকান্তিক প্রচেষ্টায় দেশ থেকে বসন্ত নির্মূল ও ম্যালেরিয়া রোগ দূর হয়েছে। সম্প্রসারিত টিকাদান কর্মসূচির মাধ্যমে বর্তমানে ১০টি মারাত্মক সংক্রামিত রোগের (শিশুদের যক্ষ্মা, পোলিও, ধনুষ্টংকার, হুপিংকাশি, ডিপথেরিয়া, হেপাটাইটিস-বি, হিমোফাইলাস ইনফুয়েঞ্জা, নিউমোনিয়া ও হাম-রুবেলা) টিকা দেন স্বাস্থ্য সহকারীরা। সরকারের বিভিন্ন দফতরের অন্যান্য কর্মকর্তা বা কর্মচারী ৩ থেকে ৭ বছর পর পর পদোন্নতি পেলেও একজন স্বাস্থ্য সহকারী ২০ থেকে ২৫ বছরে পদোন্নতি পেয়ে সহকারী স্বাস্থ্য পরিদর্শক হতে পারেন না। যদিও পদোন্নতি পান, তবুও স্বাস্থ্য পরিদর্শক হতে কমপক্ষে ৫ থেকে ৭ বছর অপেক্ষা করতে হয়। অনেকে এমন সময় পদোন্নতি পান, যখন চাকরির বয়স বাকি থাকে মাত্র ৫ থেকে ৬ মাস। আবার পদোন্নতি হলেও বেতন বাড়ে না এক পয়সাও।

সংবাদ সম্মেলনে আরও বক্তব্য দেন- বাংলাদেশ স্বাস্থ্য বিভাগীয় পরিদর্শক সমিতির সভাপতি দিনেশ চন্দ্র মণ্ডল, বাংলাদেশ স্বাস্থ্য বিভাগীয় মাঠ কর্মচারী অ্যাসোসিয়েশনের সভাপতি আসাদুজ্জামান পান্না, বাংলাদেশ হেলথ ইন্সপেক্টর সেক্টরাল অ্যাসোসিয়েশনের ক্রীড়া সম্পাদক মির আব্দুল কাদের, হেলথ্ অ্যাসিসট্যান্ট অ্যাসোসিয়েশন কেন্দ্রেীয় পরিষদের প্রধান উপদেষ্টা আবুল ওয়ারেশ পাশা পলাশ, কেন্দ্রীয় দাবি বাস্তবায়ন পরিষদের সদস্য সচিব ওয়াসিউদ্দীন রানা, সংগঠনের সাধারণ সম্পাদক জিয়াউল হাসান কাবুল, সাংগঠনিক সম্পাদক নেজাম উদ্দীন, মুখপাত্র জাকির হোসেন জগলুসহ দেশের ৬৪ জেলা কমিটির নেতারা।

এমআই



মন্তব্য