ঢাকা - নভেম্বর ২৪, ২০২০ : ৯ অগ্রহায়ণ, ১৪২৭

অবরুদ্ধ করে রেখেও শেষ রক্ষা হয়নি!

নিউজ ডেস্ক
অক্টোবর ২৯, ২০২০ ১৫:১২
১০৬ বার পঠিত

সংঘবদ্ধ সম্ভ্রম হরণের ঘটনাটি ধামাচাপা দিতে ভুক্তভোগীসহ তার পরিবারকে অবরুদ্ধ করে রাখা হয়। দেয়া হয় গ্রাম ছাড়া করার হুমকি-ধামকি। আইনের হাত থেকে বাঁচতে গ্রাম প্রধানদের সহায়তায় এমন অপচেষ্টা চালিয়েও শেষ রক্ষা হয়নি অভিয্ক্তুদের। মামলা হওয়ার পর গ্রাম প্রধানদের একজনসহ সম্ভ্রম হরণের ঘটনায় অভিযুক্ত দুই ব্যক্তিকে গ্রেফতার করেছে পুলিশ। ঘটনাটি বগুড়ার শেরপুর উপজেলার জামাইল গ্রামের।
গ্রেফতার হওয়া ব্যক্তিরা হলেন- গ্রামটির স্কুলপাড়ার বাসিন্দা হাসান আলী ভাসানের ছেলে রবিউল ইসলাম রুবেল, হাটখোলাপাড়ার বাসিন্দা বাচ্চু ফকিরের ছেলে আব্দুল জলিল ও গ্রাম প্রধান সাইফুল ইসলাম। ভুক্তভোগী একজন গৃহবধু ও কিছুটা বুদ্ধি প্রতিবন্ধি।
পুলিশ বলছে, ঘটনাটি ২৬ অক্টোবর বেলা ১১টা নাগাদ ঘটে। রবিউল ইসলাম রুবেলের বাড়িতে ঘটে সম্ভ্রম হরণের এ ঘটনা। ঘটনাটি জানাজানি হলে গ্রামপ্রধানদের শরনাপন্ন হয় রুবেল ও আব্দুল জলিল। ঘটনাটি মীমাংসার জন্য সালিশ বৈঠকও করা হয়। কিন্তু সালিশের সিদ্ধান্ত মেনে নিতে পারেনি ভুক্তভোগী ও তার পরিবার। ঘটনাটি পুলিশকে জানায় তারা। এরপর পুলিশ ভুক্তভোগীকে উদ্ধারসহ ডাক্তারী পরীক্ষার ব্যবস্থা করে। এ ঘটনায় ২৮ অক্টোবর বাদি হয়ে থানায় মামলাটি করেন ভুক্তভোগী নিজেই।
শেরপুর থানার ওসি জানান, এ ঘটনায় জড়িত থাকার কথা স্বীকার করে আসামি রবিউল ইসলাম রুবেল ও আব্দুল জলিল আদালতে ১৬৪ ধারায় জবানবন্দি দিয়েছে। বাকি আসামিদের গ্রেফতারের চেষ্টা চলছে। বগুড়া জেলা সিআইডির বিশেষ পুলিশ সুপার জানিয়েছেন, তাদের একটি টিম এ ঘটনায় ছায়া তদন্ত করছে।

এমআই



মন্তব্য